Menu

এবার নাচোল থানা পুলিশের হাতে মার খেলেন এক অভিযোগকারী !

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল থানায় চুরির অভিযোগ করায় পুলিশের এসআই আব্দুর রোউফ এর হাতে প্রকাশ্যে মার খেলেন অভিযোগকারী হাবিবুর রহমান (৩৯)। পরে থানায় আটকিয়ে সাদা কাগজে স্বাক্ষর করে ছেড়ে দেওয়া হয় তাকে। শুক্রবার বেলা ১১ টায় সময়এ ঘটনা ঘটে নাচোল ইসলামী ব্যাংকের সামনে। অভিযোগকারী হাবিবুর রহমানের বাড়ি নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার ধাঁঐল গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে।
জানাগেছে, গত ২০ নভেম্বর নাচোল-রাজবাড়ি সড়কের ব্র্যাক অফিস সংলগ্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় এক ব্যাক্তি মারা গেলে অটো চালক অটো রেখে পালিয়ে যায়। ঘটনার পর এ সুযোগে মোহাম্মাদপুর দিঘীপাড়ার মৃত সৈয়ব আলীর ছেলে আমিন (৩০) রেখে যাওয়া অটো গাড়ির ব্যাটারীর পরিবর্তন করে নেন বলে অভিযোগ হাবিবুরের। এ ঘটনায় নাচোল থানার এসআই নুরনবী অটো গাড়িটি উদ্ধার করে নাচোল থানায় আটক রাখেন। পরে হাবিববুর দূর্ঘটনায় নিহতের পরিবারের সাথে মিমাংশা করে ফেলেন এবং তার অটো ছাড়িয়ে নিতে থানায় গেলে তার অটোর ১টি অতিরিক্ত চাকা, ব্যাটারী ও অন্যান্য যত্রাংশ দেখতে না পেয়ে বিষয়টি সংশ্লিষ্ট এসআই নুরনবীকে বিষয়টি মৌখিকভাবে অবহিত করেন।
এদিকে পুলিশের নির্দেশ ক্রমে হাবিবুর তার অটো গাড়ির, ব্যাটারী, চাকা ও অন্যান্য যত্রাংশ পরিবর্তনের খোজ খবর নেয়ার এক পর্যায়ে জানতে পারেন যে মোহাম্মাদপুর দিঘীপাড়া গ্রামের আমিন ব্যাটিারী ও অন্যান্য যত্রাংশ চুরি করে পরিবর্তন করে ফেলেছে। বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে হাবিবুর রহমান নাচোল থানার দারোগা নুরনবী ও স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীকে জানান।
এদিকে হাবিবুর ব্যাটারী পরিবর্তনকারী আমিনকে খুজতে থাকে বিভিন্ন রাস্তায় কিন্তু ৫ দিন ধরে তাকে নাচোল, রাজবাড়ি ও নাচোল-আড্ডা সড়কের কোথাও না পেয়ে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেন। কিন্ত আমিন ফোনটিও বন্ধ করে রাখে।
এদিকে গতকাল শুক্রবার আমিন হঠাৎ সকালে রাজবাড়ী থেকে যাত্রী বোঝাই করে নাচোলের উদ্দেশ্যে রওনা দিলে হাবিবুর তার পিছু পিছু রওনা হয় এবং নাচোল বাষ্ট্যান্ড মোড়ে এসে পুলিশে খবর দেয়। খবর পাওয়ার অধাঘন্টা পর নাচোল থানার দারোগা আব্দুর রোউফ প্রথমে এসে দেখা করে যায় এবং বলে পরে আসছি। এরপর পৌনে ১ ঘন্টাপর এসে পুরো ঘটনা না জেনেই অভিযোগ কারী হাবিবুর রহমানকে চড়থাপ্পড় মেরে শতাধিক লোকের সামনে মোটর সাইকেলে উঠিয়ে নাচোল থানায় নিয়ে যায়। হাবিবুর রহমান বলেন, সত্য ঘটনার অভিযোগ করতে এসে দারোগার হাতে মার খেয়ে যেন ন্যায় বিচার পেয়ে গেলাম! এ বিষয়ে নাচোল থানার দারোগা আব্দুর রোউফ অভিযোগকারী হাবিবুরকে আটকে রেখে সাদা কগজে স্বাক্ষর করে নেন। দারোগা কর্তৃক অভিযোগকারীকে মারপিট ও সাদা কাগজে স্বাক্ষর নেয়ার বিষয়টি নাচোল থানার অফিসার ইনচার্জ সেলিম রেজার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান এবং কোন মন্তব্য করতে চাননি।

Flag Counter

November 2020
M T W T F S S
« Jul    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
30