Menu

মন্টু ডাক্তার শুধু আঃলীগের নেতা ছিলেন না।। তিনি শিবগঞ্জের সকল মানুষের নেতা ছিলেন

ডাঃ মঈন উদ্দীন আহমেদ মন্টু ১৯৩১ সালে অবিভক্ত ভারতের মালদহ জেলার নবাবগঞ্জ থানার মনাকষা গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। হাইস্কুলের ছাত্র থাকা অবস্থায় ছাত্রলীগের হাত ধরে রাজনীতিতে হাতে খড়ি। রাজনৈতিক প্রজ্ঞা আর যোগ্যতা দিয়ে নেতৃত্বের শক্ত অবস্থান তৈরি করে নেন। ১৯৫৬-৬০ সাল পর্যন্ত শিবগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে রাজশাহী কলেজ ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ছাত্র থাকা অবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে সংযুক্ত থাকেন।

১৯৬৫ সালে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭১-৭২ সালে গণপরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৭২-৭৫ সাল পর্যন্ত শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও ১৯৭৬-৮৭ সাল পর্যন্ত একই ইউনিটের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এসময় তিনি রাজশাহী বিভাগীয় কমিটির প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৯ সাল থেকে ৮৬ পর্যন্ত চাঁপাই নবাবগঞ্জ মহকুমা আওয়ামীলীগের দায়িত্ব পালন করেন।

এমবিবিএস পাশ করে চিকিৎসা সেবায় মনোনিবেশ করেন। খুব অল্পসময়ে ডাক্তার হিসেবে সুখ্যাতি অর্জন করেন। মিষ্টি অবয়বের লোকটি সবসময়ই হাসিমুখে থাকতেন। অনেক রোগীই তার এ্যপ্রোচের দরুন সুস্থ ফিল করতেন।

ভোটের রাজনীতিতে তার প্রবেশ ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে অংশ নেয়ার মাধ্যমে। ১৯৬৫ সালে হিসেবে তিনি মনাকষা ইউনিয়নের সদস্য নির্বাচিত হন এবং সদস্য দের ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৭০ এর ঐতিহাসিক নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন। ১৯৭৩ সালে নৌকা প্রতীকে জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে একটি মারত্মক ভুলে রাজনৈতিক ক্যারিয়ার টি প্রশ্নের সম্মুখীন হয়। স্বৈরশাসক এরশাদ সরকারের অধীনে একটি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। অচিরেই মোহ ভঙ্গ হয় এবং পুনরায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এরশাদ বিরোধী সমস্ত আন্দোলন সংগ্রামে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন। কিন্তু দল আর কখনোই তাকে কোন নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়নি।

ডাক্তার মণ্টু ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের বক্তব্যের পরপরই মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছিলেন। মার্চের শেষের দিকে শিবগঞ্জে সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন। বিভিন্ন গেরিলা অপারেশনে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন। চিকিৎসক হিসেবে মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসার দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে তিনি সম্মুখ সমরে অংশ নেন।

শিবগঞ্জের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির কাণ্ডারী ছিলেন ডাঃ মণ্টু। সবমহলের মানুষের ভালবাসায় সিক্ত হতে পেরেছিলেন তিনি। প্যারালাইসিসে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে বহু মানুষের ভালবাসা নিয়ে ইহজীবনের মায়া ত্যাগ করেন তিনি।

দীর্ঘদিন পরিশ্রমের পর দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার আশীর্বাদে চাঁপাই নবাবগঞ্জ- ১ আসনের সাংসদ হিসেবে একাদশ সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত হন তারই সুযোগ্য উত্তরাধিকার ডাঃ সামিল উদ্দীন আহমেদ শিমুল। শিবগঞ্জের আপামর জনতার ভালবাসা নিয়ে তিনি কাজ করে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত।

Flag Counter

January 2020
M T W T F S S
« Dec    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031