ভারতের উত্তর প্রদেশ ও বিহারে ভারী বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় ১২২ জনের প্রাণহানি হয়েছে। বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে বিস্তীর্ণ এলাকা। এজন্য ফারাক্কা বাঁধের ১০৯টি গেট খুলে দিয়েছে ভারত।

বিহার ও উত্তর প্রদেশে বন্যার কারণেই সোমবার বাঁধ খুলে দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।

বাঁধ খুলে দেওয়ার ফলে মুর্শিদাবাদের একাংশ ও বাংলাদেশে প্লাবনের আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। পদ্মা ছাড়াও মালদা জেলার প্রায় সমস্ত নদীতে পানি বাড়ছে। বর্ষা মৌসুমে প্রায় প্রতি বছরই ফারাক্কার গেট খুলে দিলে প্লাবনের শিকার হয় ভাটি অঞ্চলের মানুষ। এবারও গেট খুলে দেওয়ায় সেই আশঙ্কা আরও বেড়েছে।

এদিকে স্থানীয় কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত বৃহস্পতিবার থেকে সোমবার পর্যন্ত উত্তর প্রদেশে অন্তত ৯৩ জন বন্যায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। অন্যদিকে বিহারে বন্যা সংশ্লিষ্ট কারণে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৯। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।

খবরে বলা হয়, শহুরে অঞ্চলগুলোতে বন্যার প্রভাবে সৃষ্ট দুর্দশার ছবি প্রকাশ পাচ্ছে ধীরে ধীরে। বিঘ্নিত হচ্ছে সড়কে যান চলাচল, ট্রেন সেবা, স্বাস্থ্যসেবা, স্কুল ও বিদ্যুৎ সরবরাহ।

দুই অঙ্গরাজ্যের কর্মকর্তারাই নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন। এর মধ্যে বিহারের প্রধান শহর পাটনায় অবস্থা দ্রুত বেগতিক হয়ে ওঠেছে। মানুষজন মূল সড়কগুলোয় নৌকা চালাচ্ছে।